• Youtube
  • google+
  • twitter
  • facebook

‘হিরণ নগরে’ আলো জ্বালালেন জেবুন্নেছা

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট১১:৩২ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৩, ২০১৬

বরিশাল: বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের সাবেক জননন্দিত মেয়র প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা শওকত হোসেন হিরণের অসামাপ্ত কাজগুলো শেষ করার প্রত্যয় নিয়ে মাঠে নেমেছেন তার পতœী সাংসদ জেবুন্নেছা আফরোজ। স্বামী হিরণের দেয়া বরিশালবাসীকে প্রতিশ্র“তির বেশ কয়েকটি তিনি পূরণও করেছেন। যার অংশ হিসেবে হিরণের হাতে গড়ে ওঠা বরিশাল নগরী লাগোয়া কীর্তনখোলা নদীর পূর্ব পাশে অন্ধকার চরের ‘হিরণ নগর’ নামে একটি পল¬ীতে মঙ্গলবার সুইচ টিপে আলোকিত করেন সাংসদ জেবুন্নেছা।

 

এ আলো ছড়িয়ে পড়ে সেখানকার ১৩৫ পরিবারে। সাবেক মেয়রের প্রতিশ্র“তি তার স্ত্রী বাস্তবায়ন এবং আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করায় সেখানে সৃষ্টি হয় উৎসবমূখর পরিবেশের। সঙ্গত কারণে কেউ আর বলতে অপেক্ষা রাখেনি যে অন্ধকার হিরণ নগরে আলো জ্বালালেন জেবুন্নেছা। যার মধ্যদিয়ে পূরণ হয়েছে হিরণের দেয়া প্রতিশ্র“তি।’ বরিশাল সদর উপজেলার চরকাউয়া এলাকায় নদীর তীরে অবস্থিত এ নগরে ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে চারটি ট্রান্সফরমারের মাধ্যমে ১৩০টি পরিবার ও পাঁচটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে এ বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে। বিডিটি-১ প্রকল্পের অধীনে নির্মিত লাইনের পরিমাণ ০ দশমিক ৫১৭ কিলোমিটার বলে জানিয়েছে পল¬ী বিদ্যুৎ।

 

বরিশালের চরকাউয়ার মাঝি মাল¬া সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক কবির মুন্সির পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, বরিশাল সদর উপজেলার চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু, বরিশাল পল¬ী বিদ্যুৎ সমিতির তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী রমজান আলী, বরিশাল পল¬ী বিদ্যুৎ সমিতির-১ এর জেনারেল ম্যানেজার এইচ এম মোবারক উল্যা, বরিশাল মহানগর মৎস্যজীবি শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি বাদশা চৌধুরী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মনিরুল ইসলাম ছবি এবং উপজেলা শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম মোল্যা।

 

প্রসঙ্গত- বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগে সভাপতি শওকত হোসেন হিরণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র থাকাকালীন নগরীর আমতলার মোড় পানির ট্যাংকি সংলগ্ন বস্তিবাসীকে সরিয়ে সেখানে একটি পার্ক নির্মাণ করেন। সেই পার্কটির নামকরণ করা হয় স্বাধীনতাপার্ক।’ এ সময় হিরণ ভূমিহীন বস্তিবাসীদের কীর্তনখোলা নদীর পূর্বপাশে চরকাউয়া ফেরিঘাট সংলগ্ন এলাকায় খাস জমিতে থাকার জন্য সুবিধা করে দেন। এমনকি সেখানে ভূমিহীনদের জন্য নিজের ব্যক্তিগত বিশেষ বরাদ্দে ঘরও নির্মাণ করে দেন। পর্যায়ক্রমে সেখানে গড়ে ওঠে বিশালাকারের বসতি। সেই পল¬ীতে একদিন দেখা যায় সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরণের নামে একটি সাইনবোর্ড। এতে ওই পল¬ীটির নাম উলে¬খ করা হয় ‘হিরণ নগর’।

 

যে কারণে ধীরে ধীরে পল¬ীটি ‘হিরণ নগর’ হিসেবেই পরিচিতি পায়।’ হিরণ পতœী জেবুন্নেছা আফরোজ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে বলেন- তার মূল লক্ষ্যই হলো মৃত্যুর আগে হিরণের দেয়া বরিশালবাসীকে প্রতিশ্র“তিগুলো বাস্তবায়ন করা। তাছাড়া হিরণের দিয়ে যাওয়া প্রতিশ্র“তিগুলো যৌক্তিক হওয়ায় স্বংয় প্রধানমন্ত্রী আ. লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাও সহযোগিতায় করছে বলে জানান জেবুন্নেছা আফরোজ।’

ads

লাইভ

টপ