• Youtube
  • google+
  • twitter
  • facebook

শেষ সম্বল আশ্রয়স্থল হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে রাত যাপন

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট৩:১৪ অপরাহ্ণ, মে ২, ২০১৬

ঝালকাঠি: ঝালকাঠির রাজাপুরের চর ইন্দ্রপাশা গ্রামের আশ্রয়ন প্রকল্পে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ১০ ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। গতকাল ১ এপ্রিল রোববার দুপুর পৌনে ১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঝালকাঠি ও কাউখালি ফায়ার সার্ভিসের ২ ইউনিটের কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা করছে। তবে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা।

 

চর ইন্দ্রপাশা আশ্রয়ন প্রকল্প কমিটির সভাপতি সেলিম হাওলাদার আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা টুটুল হোসেন জানান, রোববার দুপুর হঠাৎ আগুনের লেলিহান শিখা দেখে সবাই ডাক-চিৎকার শুরু করে আগুন নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা শুরু করি। আগুনের তীব্রতা থাকায় নিয়ন্ত্রনে আনতে স্থানীয়রা ব্যর্থ হই। আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দা নুরুল ইসলামের ঘর থেকে বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগে ওই সারির বাসিন্দা নুরুল ইসলাম, রুবেল হোসেন, রহমান হোসেন, ফিরোজ হোসেন, চামেলি বেগম, জাকিয়া বেগম, ছাহেরা বেগম, জাহানারা বেগম, শাহ আলম, হুমাউন কবিরের বসতঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

 

 

ঝালকাঠির ও কাউখালির ২ ইউনিটের ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে স্থানীয়দের সহায়তায় ২ ঘণ্টা চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। ক্ষতিগ্রস্থদের দাবি, এ অগ্নিকান্ডে ৩০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে এবং আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে গিয়ে ছুটোছুটিতে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। মঠবাড়ি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হক নান্টু জানান, অগ্নিকান্ডে বসতঘরসহ সবকিছু হারিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলো একেবারেই নিস্ব হয়ে খোলা আকাশের নিচে কোন মতে বসবাস করতে হবে। এর আগেও কয়েক বছর আগে আশ্রয়ন প্রকল্পের একই সারির ১০টি ঘর পুড়ে গেছিল বলেও জানান তিনি। ঝালকাঠি ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন মাস্টার আব্দুল আজিজ ফরাজি জানান, স্থানীয়দের সহায়তায় অন্তত ২ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেও এক সারির ১০টি ঘর পুড়ে গেছে। তবে আশপাশের ঘর গুলো আগুনের হাত থেকে রক্ষা করতে সক্ষম হয়েছি। এদিকে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারদেরকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

লাইভ

টপ