• Youtube
  • google+
  • twitter
  • facebook

শেবাচিমের ৩ নার্সিং কর্মকর্তাকে বদলি, প্রতিবাদে বিক্ষোভ

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট৬:০০ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৬, ২০১৭

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের তিন নার্সিং কর্মকর্তাকে বদলির সুপারিশ করায় বিক্ষোভ করেছে হাসপাতালে কর্মরত নার্সরা। রোববার (১৬ জুলাই) বেলা ১২ টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল কম্পাউন্ডে এ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হয়।

এসময় অবিলম্বে পরিচালক ডা. এস এম সিরাজুল ইসলামের করা সুপারিশ প্রত্যাহার না করলে লাগাতার কর্মবিরতি পালনের হুমকি দিয়েছেন।

হাসপাতালের নার্সিং কর্মকর্তা পুতুল সুতার বরিশালটাইমসকে জানান- বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ৭ শতাধিক নার্স রয়েছেন। যারা সার্বক্ষণিক রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। সেই সাথে অসংখ্য শিক্ষানবিশ নার্সও রয়েছে। কিন্তু বিপুল সংখ্যক এই নার্সদের জন্য পানি পান করার জন্যও কোনো ব্যবস্থা নেই। তাই সাধারণ নার্সরা হাসপাতাল কম্পাউন্ডে একটি নার্সেস ক্যাফেটেরিয়ার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি তোলেন।

তিনি বলেন, সম্প্রতি স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে হাসপাতাল চত্বরে একটি নার্সেস ক্যাফেটেরিয়া নির্মাণ করে দেয়ার জন্য হাসপাতাল পরিচালককে নির্দেশ দেন সভার সভাপতি আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ এমপি। তার নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও ক্যাফেটেরিয়া স্থাপনে বিলম্ব করেন পরিচালক ডা. এস এম সিরাজুল ইসলাম।

তাই সাধারণ নার্সেদের পক্ষ হয়ে স্বাধীনতা নার্সেস পরিষদ (স্বানাপ) বরিশাল বিভাগের সভাপতি ও জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ফরিদুন নেছা, বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাহাবুদ্দিন সিকদার এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল কাদের খানসহ বেশ কয়েকজন নার্সিং কর্মকর্তা হাসপাতাল পরিচালক ডা. এসএম সিরাজুল ইসলামের কাছে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চান। এ জন্য পরিচালক ক্ষিপ্ত হন। এমনকি ওই তিন নার্সকে অন্যত্র বদলির জন্য গত ২ জুলাই নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরে একটি সুপারিশ পাঠান।

আন্দোলনরত নার্সরা বলেন, পরিচালক হাসপাতাল পরিচালনার ব্যর্থতার গ্লানি আড়াল করতেই নার্সিং কর্মকর্তা ও নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে লেগেছেন। তাই অবিলম্বে তিন নার্সিং কর্মকর্তাকে বদলির জন্য করা সুপারিশ প্রত্যাহারের দাবি জানান নার্স নেতৃবৃন্দ।

এর ব্যতিক্রম হলে শেবাচিমে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতির ডাক দেয়া হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তারা। পরে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) নেতৃবৃন্দ বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিলে নার্সিং কর্মকর্তারা শান্ত হন।’’

ads

লাইভ

টপ