• Youtube
  • google+
  • twitter
  • facebook

র‌্যাবে প্রশংসা কুড়িয়ে জিয়া এখন এনএসআইয়ে, গর্বিত বরিশালবাসী

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট৮:৪০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৯, ২০১৬

বরিশাল: র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) শীর্ষ কর্মকর্তা জিয়াউল আহসান পদোন্নতি পেয়ে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআইয়ের পরিচালকের দায়িত্ব নিয়েছেন। বৃহস্পতিবার তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে ওই সংস্থাটির দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। বরিশালের সন্তান সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা জিয়ার কর্মক্ষেত্রে তার দক্ষতা এবং যোগ্যতার স্বীকৃতিস্বরূপ এ পদোন্নতি পেয়েছেন বলে অনুমেয়।

দীর্ঘকাল তিনি র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মতো একটি সংস্থার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থেকে দক্ষতার প্রমাণ দিয়ে কুড়িয়েছেন প্রশংসা। যার দরুণ তাকে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন)  পদে থাকাকালে কর্নেল  থেকে বিগ্রেডিয়ার জেনারেল পদে পদোন্নতি দিয়ে তাকে সেখানে নিযুক্ত করা হয়।

জিয়াউল আহসান র‌্যাবে থাকাকালে জেএমবি, হুজি, আনসারুল্লাহসহ অন্যান্য জঙ্গি সংগঠনগুলোর শীর্ষস্থানীয় নেতা, সাভারের রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানা, ‘মাদক সম্রাট’ আমিন হুদাসহ অনেক অপরাধীকে গ্রেপ্তারে অগ্রণী ভুমিকা রাখেন।’

এছাড়া ব্যাংকের লুট হয়ে যাওয়া ১৬ কোটি টাকা উদ্ধার, বিভিন্ন হাসপাতালে নবজাতক চুরি ও কেনা-বেচা রোধ, ভেজালবিরোধী অভিযান পরিচালনা ও বন্যপ্রাণি সংরক্ষণের ক্ষেত্রেও ভুমিকা রেখে প্রশংসনীয় হয়েছেন।

ফলশ্র“তিতে প্রতিনিয়ত সংবাদপত্রের শিরোনাম হয়ে আলোচনার পাশাপাশি দেশবাসীর কাছে একটি পরিচিত মূখ হয়ে ওঠেন বরিশালের এই কৃতি সন্তান। বিশেষ করে জিয়াউল আহসানের প্রত্যাশিত পদোন্নতি আনন্দ দিয়েছে বরিশালবাসীকে।

এছাড়া জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআইয়ের মতো একটি সংস্থার দায়িত্ব তাকে দেয়ায় অনেকটা গর্ববোধও করছে বরিশাল তথা গোটা দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ। সন্ত্রাস দমনের লক্ষে পুলিশের অধীনে গঠিত বিশেষ বাহিনী র‌্যাবের দ্বিতীয় শীর্ষ পদ অতিরিক্ত মহাপরিচালকের দায়িত্ব আড়াই বছর আগে নিয়েছিলেন জিয়া। দায়িত্ব পালনের এই সময় সংঘটিত নানা ঘটনায় প্রশংসিত ভুমিকা রেখে আলোচনায় আসেন তিনি।’ জিয়াউল আহসান ২০০৯ সালে ৫ মার্চ র‌্যাব-২ এর উপ-অধিনায়ক হিসাবে এই বাহিনীতে যোগ দেন। তখন তিনি মেজর পদমর্যাদার কর্মকর্তা ছিলেন।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে ওই বছর ২৭ অগাস্ট র‌্যাবের ইন্টেলিজেন্স উইংয়ের পরিচালকের দায়িত্ব পান এই চৌকশ কর্মকর্তা। পরবর্তীতে ২০১৩ সালের ৭ ডিসেম্বর অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস্) দায়িত্ব নেন। এর আগে জিয়াউল আহসান ১৯৯১ সালের ২১ জুন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে পদাতিক কর্মকর্তা হিসেবে কমিশন লাভ করেন।

তিনি সেনাবাহিনীর একজন প্রশিক্ষিত কমান্ডো ও স্কাই ডাইভার।’ র‌্যাবে কর্মরত থাকাকালে তিনি দুইবার বাংলাদেশ পুলিশ পদক এবং দুবার প্রেসিডেন্ট পুলিশ অর্জন করেন।’

লাইভ

টপ