• Youtube
  • google+
  • twitter
  • facebook

অপহৃত কলেজছাত্রীকে ৭ দিন পর ফেরত!

বরিশাল টাইমস রিপোর্ট৬:৩৩ অপরাহ্ণ, মে ৭, ২০১৬

উজিরপুরে কলেজ পড়–য়া ছাত্রীকে অপহরণের ৭ দিন পরে উজিরপুর মডেল থানায় ফেরত দিলেন ছেলের মামী। থানা ও মেয়ের পরিবার সূত্রে জানা যায় গুঠিয়া ইউনিয়নের নারায়নপুর গ্রামের মুসলিম পরিবারের জনৈক ব্যক্তির কন্যা গুঠিয়া আইডিয়াল কলেজের এইচ.এস সি ১ম বর্ষের ছাত্রীকে উজিরপুর উপজেলার মধ্য মশাং গ্রামের মশাং আনোয়ার খান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গৌতম চন্দ্র হালদারের বখাটে পুত্র মুসলিম নামধারী গোপাল চন্দ্র হালাদার রমেন(২৫), গুঠিয়া ইউনিয়নে সৌরবিদ্যুতে চাকুরী করার সুবাধে প্রতারণার মাধ্যমে ২ বছর পূর্বে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে এক পর্যায়ে মন দেয়া নেয়া হয়।

 

অবশেষে ২৯ এপ্রিল শুক্রবার ছাত্রীকে নিয়ে রমেন ঢাকার উদ্দেশ্যে পাড়ি জমায় । ঘটনার পরের দিন ছাত্রীর মা মাসুদা বেগম উজিরপুর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। ৭ মে শনিবার সকালে গোপাল চন্দ্র হালাদার রমেনের ঢাকায় বসবাসকারী মামী উজিরপুর মডেল থানায় ছাত্রীটিকে নিয়ে হাজির হন। এদিকে ছাত্রীর মা, বোন সহ আত্মীয় স্বজন উজিরপুর থানায় এসে ছাত্রীকে নিজেদের জিম্মায় নিয়ে যান। এব্যাপারে ওই ছাত্রী সাংবাদিকদের সাথে জানান রমেন প্রথমে প্রতারণার মাধ্যমে মুসলিম পরিবারের ছেলে রফিক নাম ধারন করে প্রেমের অভিনয় করে আমাকে আকৃষ্ট করে এবং বিয়ে করার কথা আমাকে নিয়ে ঢাকায় যায়।

 

তখন রমেন জানায় সে হিন্দু পরিবারের সন্তান বিয়ে করে মুসলমান হয়ে যাবে। কিন্তু এখন সে প্রতারণা করে বলে আমি হিন্দু হলে আমাকে বিয়ে করবে। এ নিয়ে দুই জনের মধ্যে মতবিরোধ চলছে। অন্যদিকে কোন পরিবারই বিষয়টি মেনে নেয়নি। আর যেন কোনদিন কোন প্রতারক মেয়েদের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে না পারে আমি প্রতারক রমেনের সুষ্ঠু বিচার চাই।  মশাং এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় গোপাল চন্দ্র হালদার রমেনের পিতা প্রধান শিক্ষক গৌতম চন্দ্র হালদার তার জীবনেও এরকম একাধীক ঘটনা ঘটিয়েছে এই বখাটে পুত্র রমেন ইতিপূর্বে আরো অনেক মেয়েদের ইজ্জত নষ্ট করেছে। রমেনের পিতা গৌতম চন্দ্র হালদার জানান, আমার ছেলে মেয়েটিকে নিয়েছিল সত্য, তবে বিষয়টি মিমাংশা হয়ে গেছে।

লাইভ

টপ